More

    সবচেয়ে কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে মাঠে থাকবে সেনাবাহিনী: প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ

    সেনাবাহিনী মাঠে থাকবে ‘আর্মি ইন এইড টু সিভিল পাওয়ার’ বিধানের আওতায়। জেলা ম্যাজিস্ট্রেট স্থানীয় সেনাবাহিনী কমান্ডারের সঙ্গে যোগাযোগ করে বিষয়টি নিশ্চিত করা হবে।

    নিজস্ব প্রতিবেদক

    করোনাভাইরাসের উচ্চগতির সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে ঈদের আমেজ কাটার আগেই শুক্রবার থেকে আবারও ১৪ দিনের জন্য শাটডাউনে যাচ্ছে দেশ। সরকার থেকে বলা হচ্ছে, এবারের শাটডাউন হবে ‘সবচেয়ে কঠোর’। আর তা বাস্তবায়নে আগের বারের মতো পুলিশের পাশাপাশি দেশজুড়ে মোতায়েন করা হবে সেনাবাহিনীকেও।

    ‘অফিস-আদালত, গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি, রপ্তানিমুখী- সবকিছু বন্ধ থাকবে তাই এটা এ পর্যন্ত যতগুলো লকডাউন হয়েছে তার মধ্যে সবচেয়ে কঠোর হবে। এটি বাস্তবায়নে মাঠে পুলিশের পাশাপাশি থাকবে বিজিবি ও সেনাসদস্যরা’। – জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন

    সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইন-২০১৮ এর আওতায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে ব্যবস্থা নিতে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ বাহিনীকে আইনানুগ প্রয়োজনীয় ক্ষমতা দেওয়ার কথা ইদের আগে জারি করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়। এবারো তেমনটাই করা হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

    সেনাবাহিনী মাঠে থাকবে ‘আর্মি ইন এইড টু সিভিল পাওয়ার’ বিধানের আওতায়। জেলা ম্যাজিস্ট্রেট স্থানীয় সেনাবাহিনী কমান্ডারের সঙ্গে যোগাযোগ করে বিষয়টি নিশ্চিত করা হবে।

    জেলা ম্যজিস্ট্রেট জেলা পর্যায়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নিয়ে সমন্বয় সভা করে সেনাবাহিনী, বিজিবি, কোস্টগার্ড, পুলিশ, র‌্যাব, আনসার নিয়োগ ও টহলের অধিক্ষেত্র, পদ্ধতি ও সময় নির্ধারণ করবেন। একইসাথে স্থানীয়ভাবে বিশেষ কোনো কার্যক্রমের প্রয়োজন হলে সে বিষয়ে পদক্ষেপ নেবে।

    বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, বিভাগগুলো এ বিষয়ে মাঠ পর্যায়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদান করবে। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনায় জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় মাঠ পর্যায়ে প্রয়োজনীয় সংখ্যক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগের বিষয়টি নিশ্চিত করবে।

    কঠোর লকডাউন নিশ্চিত করতে এবারও মাঠে থাকছে সেনাবাহিনী। সরকার থেকে বলা হচ্ছে, এবারের লকডাউন হবে ‘সবচেয়ে কঠোর’। আর তা বাস্তবায়নে পূর্বের মতো পুলিশের পাশাপাশি দেশজুড়ে মোতায়েন করা হবে সেনাবাহিনীকেও।

    ইদের আগে ১ জুলাই থেকে ১৪ দিনের লকডাউনেও শুরু থেকেই টহলে নামে সেনাবাহিনীর সদস্যরা। কোরবানির ইদ বিবেচনায় নিয়ে লকডাউন শিথিল হওয়ার আগ পর্যন্তই মাঠে ছিলেন সেনা সদস্যরা।

    এর আগে, ২০২০ সালে দেশজুড়ে ‘অঘোষিত লকডাউন’ শুরু হলে তা বাস্তবায়নেও ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে অন্যান্য বাহিনীর সাথে মাঠে ছিল সেনাবাহিনী।

    অন্য আরো একটি বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘২৩ জুলাই সকাল থেকে ফেরিতে যাত্রীবাহী সব ধরনের গাড়ি ও যাত্রী পরিবহন বন্ধ থাকবে। কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে শুধু জরুরি পণ‍্যবাহী গাড়ি ও অ্যাম্বুলেন্স পারাপার করা হবে।’

    এর আগে, কোভিড-১৯ এর দ্বিতীয় ঢেউয়ের মধ্যে ১ জুলাই থেকে কঠোর বিধিনিষেধ দিয়ে দেশজুড়ে মানুষের অবাধ চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে সরকার, যা এবার পরিচিতি পেয়েছে শাটডাউন নামে। তবে ঢাকার সঙ্গে যোগাযোগ আরো আগে থেকেই বন্ধ ছিল মুন্সিগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরের ওপর দিয়ে গাড়ি চলাচল বন্ধ থাকায়।

    এই পরিস্থিতিতে এবার ইদে বাড়ি যাওয়া অনিশ্চয়তার মধ্যে সরকার হঠাৎ করেই ১৫ জুলাই থেকে আট দিনের জন্য কঠোর বিধিনিষেধ শিথিল করে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চালু হয় গণপরিবহন।

    সে সময় জানিয়ে দেওয়া হয়, ২৩ জুলাই থেকে আবার বন্ধ হয়ে যাবে মানুষের চলাচল, অফিস, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বিপণিকেন্দ্র । তবে ২০২০ সালের সাধারণ ছুটি ও চলতি বছরের এপ্রিল থেকে লকডাউন ও ১ জুলাই থেকে শাটডাউনে পোশাক কারখানা বন্ধ না থাকলেও এবার বন্ধ থাকবে বলেও জানিয়ে দেওয়া হয়।

    অর্থাৎ ইদে বাড়ি গেলে উৎসবের পরদিনই ফিরতে হবে, এমনটাই জানিয়ে দিয়েছিল সরকার। কিন্তু সামাজিক মাধ্যমে গুজব ছড়িয়ে পড়ে যে ২৭ জুলাই ভোর পর্যন্ত শিথিল থাকবে কঠোর বিধিনিষেধ। আর সেই গুজবে ভর করে এখন ভোগান্তিতে লাখো মানুষ।

    তবে প্রতিবারের মতো এবারো জরুরি সেবাকে আরোপিত বিধিনিষেধের বাইরে রাখা হয়েছে। ওষুধ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী কেনা, চিকিৎসেবা, মৃতদেহ সৎকারের মতো বিষয়গুলো রাখা হয়েছে অতি জরুরি সেবা খাতে। এছাড়াও জরুরি সেবার মধ্যে যারা আছেন, তাদেরও চিহ্নিত করেছে সরকার।

    © এই নিউজ পোর্টালে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
    / month
    placeholder text

    সর্বশেষ

    রাজনীাত

    বিএনপি চেয়ারপারসনের জন্য বিদেশে হাসপাতাল খোজা হচ্ছে

    প্রভাতী সংবাদ ডেস্ক: বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিদেশে উন্নত চিকিৎসার জন্যে আবেদন করা হয়েছে। খালেদা জিয়ার পরিবারের সদস্যরা মনে করেন আবেদনে সরকারের দিক থেকে ইতিবাচক...

    আওয়ামী লীগের শান্তি সমাবেশ

    আরো পড়ুন

    Leave a reply

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    spot_imgspot_img