More

    ত্রিপুরার মাঠে তৃণমূল ‘বিজেপি হটাও’ কর্মসূচি নিয়ে

    প্রভাতি সংবাদ ডেস্ক:

    পৌর ও নগর সংস্থার ভোট সম্পন্ন হওয়ার পর অনেকেরই মনে হয়েছিল ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য ত্রিপুরা নিয়ে এখন বেশি আগ্রহ দেখাতে চাইছে না তৃণমূল কংগ্রেস। বিশেষ করে নির্বাচনে ব্যাপক ভরাডুবির পর শেষ ১৫ দিনে ত্রিপুরায় তৃণমূলের কোনো নেতাকে ঢুকতে না দেখে অনেকেই এমনটি ধারণা করেছিলেন।

    যদিও সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে নতুন বছরে রাজ্যটিতে লাগাতার কর্মসূচি নিয়ে আসছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই দল। তারা আগামী বছরের শুরুতে ‘বিজেপি হটাও’ কর্মসূচি ঘোষণা করতে যাচ্ছে।

    ত্রিপুরায় তৃণমূলের কর্মসূচি নির্ধারণ করতে সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে সোমবার (১৩ ডিসেম্বর) রাজ্যটিতে আসেন বঙ্গ তৃণমূলের নেতা রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি ত্রিপুরায় পৌঁছে প্রাদেশিক তৃণমূলের স্টিয়ারিং কমিটির আহ্বায়ক সুবল ভৌমিকের বাড়িতে একটি বৈঠক করেন। বৈঠকে লাগাতার কর্মসূচির সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। যতদিন ত্রিপুরা থেকে শাসক বিজেপিকে হটানো না যাবে ততদিন আন্দোলন কর্মসূচি চলবে বলে এদিন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এতে বঙ্গের এক ঝাঁক নেতৃত্ব উপস্থিত থাকবে বলেও জানান দলটির নেতা রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়।

    বৈঠকের পর এক সংবাদ সম্মেলনে রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, শাসকদল বিজেপির নেতৃত্বে ত্রিপুরায় যে ধরনের নৈরাজ্য চলছে তা এক কথায় অভাবনীয়। অগণতান্ত্রিক সরকারের শাসনামলে মানুষ কোনো অবস্থাতেই নিরাপদ থাকতে পারে না।

    তার মতে, ত্রিপুরার ক্ষেত্রে এখন সেটাই হচ্ছে। বর্তমানে সাধারণ মানুষের কোনো নিরাপত্তা নেই, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতি ঘটেছে। বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলোতে এমনটাই হচ্ছে। বিষয়টি পশ্চিমবঙ্গের পরিসংখ্যানের সঙ্গে মিলিয়ে দেখলে স্পষ্ট হয়ে যায়।

    তৃণমূলের এই নেতা মনে করেন, যারা (তৃণমূল) ১ শতাংশ ভোট পাবে না বলে এতদিন প্রচার করা হয়েছে, তারা ২০ শতাংশের বেশি ভোট পেয়ে তাদের জানান দিয়েছে। বিষয়টি শাসক বিজেপি আগে থেকেই জানত। আর এ জন্য নির্বাচনের আগে তৃণমূলকে কোনো মিছিল-মিটিংয়ের অনুমতি দেওয়া হয়নি। কিছুক্ষেত্রে অনুমতি দিলেও পরবর্তীকালে তা বাতিল বলে ঘোষণা করা হয়।

    তিনি আরও বলেন, আগামী ২০ ডিসেম্বর তৃণমূলের পক্ষ থেকে ত্রিপুরার বিভিন্ন মহকুমা শাসকের কার্যালয়ে গিয়ে মহকুমা শাসকদের কাছে ডেপুটেশন প্রদানের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। তৃণমূলের কর্মী-সমর্থকরা মিছিল নিয়ে এক যোগে এই ডেপুটেশন দেবে।

    তার মতে, মূলত রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতিসহ স্বাস্থ্য, শিক্ষা, বিদ্যুতের মাশুল বৃদ্ধি, জনগণের নিরাপত্তাসহ বিভিন্ন ইস্যু এ ডেপুটেশনে তুলে ধরা হবে। এরই মধ্যে নেতাদের মধ্যে দায়িত্বও ভাগ করে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া আগামী ৫ জানুয়ারি ১৫ দফা দাবিতে কেন্দ্রীয়ভাবে রাজভবন অভিযান করা হবে।

    তিনি দাবি করেন, তৃণমূল যা প্রতিশ্রুতি দেয় সবসময়ই তা করে দেখায়। নির্বাচনের আগে বিজেপি যেসব প্রতিশ্রুতি দিয়ে ত্রিপুরায় ক্ষমতায় আসছে, সেসব প্রতিশ্রুতির সিকিভাগও পূরণ করেনি। রাজ্যে উন্নয়নের ছিটেফোঁটাও পৌঁছায়নি তা ত্রিপুরার ‘মাই গভর্নমেন্ট অ্যাপ’ থেকেই স্পষ্ট। বিজেপির ভাঁওতাবাজি এর আগেও উত্তরপ্রদেশ, ছত্তিসগড়ে দেখা গেছে।

    এদিন সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে ফরওয়ার্ড ব্লকের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক পীযূষ কান্তি দেবরায়সহ আরও বেশ কয়েকজন বামপন্থি নেতা তৃণমূলে যোগ দেন। তৃণমূল নেতা রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়সহ প্রদেশ তৃণমূলের স্টিয়ারিং কমিটির আহ্বায়ক সুবল ভৌমিক দলীয় পতাকা হাতে তাদের বরণ করে নেন।

    পরবর্তীকালে প্রাদেশিক নেতা সুবল ভৌমিক বলেছিলেন, জনগণ এখন মা-মাটি-মানুষের সরকারের ওপর আস্থা রাখতে শুরু করেছে। এজন্য ছাপ্পা ভোটের রাজনীতি করেও তৃণমূলকে আটকানো যাচ্ছে না। ভোটের ফলাফলে বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে যায়।

    ত্রিপুরা রাজ্যের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি বলেন, সম্পূর্ণ অগণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার কেড়ে নেওয়া হচ্ছে। অথচ রাজ্যের রাজ্যপাল বরাবরের মতো এবারও নিশ্চুপ রয়েছেন। এ জন্য তাকে জাগাতে আগামী ৫ জানুয়ারি আমরা রাজভবন যাচ্ছি।

    © এই নিউজ পোর্টালে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
    / month
    placeholder text

    সর্বশেষ

    রাজনীাত

    বিএনপি চেয়ারপারসনের জন্য বিদেশে হাসপাতাল খোজা হচ্ছে

    প্রভাতী সংবাদ ডেস্ক: বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিদেশে উন্নত চিকিৎসার জন্যে আবেদন করা হয়েছে। খালেদা জিয়ার পরিবারের সদস্যরা মনে করেন আবেদনে সরকারের দিক থেকে ইতিবাচক...

    আওয়ামী লীগের শান্তি সমাবেশ

    আরো পড়ুন

    Leave a reply

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    spot_imgspot_img