More

    গ্রীস: এক বিস্ময়কর ভূখণ্ড !

    প্রভাতী সংবাদ ডেস্ক:

    কর্মব্যস্ত এবং একঘেয়ে জীবনের ক্লান্তি নিরসনের জন্য অবকাশ যাপনের বিকল্প নেই- সেটা দেশেই হোক বা বিদেশেই হোক । আপনি যখন অবকাশ যাপনের স্থান নির্ধারণে দ্বিধাগ্রস্ত বা মনস্থির করতে পারছেন না কোথায় যাবেন।

    আপনার পরিকল্পিত বৈশ্বিক ভ্রমণকে স্বপ্নময় আর অর্থময় করে তোলার জন্য জায়গার অভাব হবে না। আপনার অবকাশযাপন স্বপ্নময় করে তুলতে পারে প্রাচীন উপকূল, ঘন সবুজ আর বিস্ময়কর স্থাপত্যের আধার গ্রীসের প্রধান কিছু ভূখণ্ড।

    ইউরোপের একটি দেশ। চমতকার এই দেশটির কিছু বিস্ময়কর ভূখণ্ডের সাথে পরিচয় উত্তর-পশ্চিম গ্রীসের উপকূলীয় এপিরাস অঞ্চলে অবস্থিত তিনটি ভূখণ্ড- প্রিভেজা, পারগা এবং সিভটা যেখানে আপনি বন্য উপত্যকা, আলপাইন হ্রদ, মনোরম প্রাকৃতিক দৃশ্য এবং ফিরোজা জলের দেখা পাবেন- সাথে আরও থাকছে প্রথম শ্রেণীর রন্ধন এবং অপরূপ সৈকতের কথা না বললেই নয়। সংক্ষেপে আলোকপাত করছি কেন এই তিনটি চমৎকার গন্তব্য আপনার দর্শন তালিকার শীর্ষে থাকা উচিত।

    প্রেভেজা:

    আপনি কি একটি চিত্তাকর্ষক সমুদ্রসৈকতে সময় কাটাতে চান? অবিশ্বাস্য মজাদার স্থানীয় খাবারের স্বাদ পেতে চান? অথবা পুরাতাত্ত্বিক নিদর্শনসমূহ ঘুরে দেখতে এবং মনোরম হাইকিং ট্রেইলগুলো অন্বেষণ করতে চান? সেক্ষেত্রে নিঃসন্দেহে প্রেভেজা আপনার স্বপ্নের গন্তব্য ।

    প্রেভেজা উত্তর-পশ্চিম গ্রীসের এপিরাস অঞ্চলের একটি শহর। সমুদ্রতীরবর্তী এই শহরটি উত্তর-পশ্চিমে অ্যাম্ব্রেশিয়ান উপসাগরের প্রান্তে অবস্থিত। এখানে রয়েছে ঐতিহ্যবাহী সরাইখানা, অসাধারণ স্থাপত্য এবং মনোরম সাদা বালির বিস্তৃতি।

    গ্রীসের প্রথম এবং এখন পর্যন্ত একমাত্র সমুদ্রতলের টানেল হল অ্যাক্টিও-প্রেভেজা নিমজ্জিত টানেল । ২০০২ সালে এর নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়। এই টানেল দিয়ে এপিরাস হতে প্রেভেজা শহরে প্রবেশ করা যায় ।

    এই শহরের আকর্ষণীয় রাস্তায় ঘুরতে বেড়িয়ে আপনি চমৎকার বাইজেন্টাইন এবং ভেনিসিও স্থাপত্য দর্শন করতে পারেন। তারপর রোমান সাম্রাজ্যের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ শহর নিকপলিসের ধ্বংসাবশেষ এবং সেই সাথে ক্যাসিওপির প্রাচীন সাইটও পরিদর্শন করতে পারেন। উল্লেখ্য, প্রাচীন শহর নিকপলিসের ধ্বংসাবশেষ শহর থেকে ৭ কিলোমিটার (৪ মাইল) উত্তরে অবস্থিত।

    সান্ধ্যকালীন মনোমুগ্ধকর দৃশ্য অবলোকনের যেতে পারেন অ্যাম্ব্রাকিকস উপসাগরের মুখে অবস্থিত ঊনবিংশ শতাব্দীর প্যান্টক্রেটরাস ক্যাসেলে ।

    একদিনের মধ্যে আপনি দেখতে পারেন সুরম্য ভেনেসিও দুর্গ, প্রেভেজার ‘বিগ বেন’ ক্লক টাওয়ার এবং ঐতিহাসিক দুর্গ ও জাদুঘর ।
    প্রকৃতিপ্রেমীদের জন্য প্রেভেজা উপযুক্ত জায়গা। শ্যামল পর্বতমালা এবং ঝলমলে নদীর পাশ দিয়ে ১২টি হাইকিং রুট রয়েছে -কায়াকিং এবং সাঁতারের জন্য আদর্শ জায়গা বটে।

    নৈসর্গিক ভ্রমণের জন্য নৌকায় চড়ে বসুন-আপনি হয়তো ডলফিন দেখতে পাবেন। অ্যানজিওন গ্রামের উষ্ণ ঝরনা হিমশীতল বিকেলে আপনাকে উষ্ণ আমেজ দেবে।

    সন্ধ্যায় ভেনেজেল রাস্তায় মনোরম জলাশয়ের পাশে সরাইখানায় গিয়ে ঐতিহ্যবাহী নাস্তার প্লেটে প্রেভেজার বিখ্যাত পিটা রুটি,সুস্বাদু পাই খেতে পারেন বা স্থানীয় সিপরাতে চুমুক দিয়ে এর স্বাদ নিতে পারেন।

    মনোরম সামুদ্রিক পরিবেশে কিছুদিন কাটানোর জন্য প্রেভেজা একটি আদর্শ স্থান। প্রেভেজার প্রধান সৈকত মনলিথি। সূক্ষ্ম বালি ও ফিরোজা জলের সমাহারে ২২ কিলোমিটার লম্বা এবং ৮০ মিটার প্রশস্ত এই সৈকতটি ইউরোপের দীর্ঘতম।

    অপর আরেকটি হল ইউরোপের নিরাপদ পোস্ট-কভিড সৈকত। সৈকতগুলোতে পাবেন নির্জন স্পট, ওয়াটার স্পোর্টস এবং সরাইখানাগুলোতে তাজা মাছ দিয়ে তৈরি মুখরোচক খাবার।

    স্বর্গরাজ্য পারগা:

    গ্রীসের উত্তর-পশ্চিম উপকূলে অবস্থিত চমকপ্রদ উপকূলীয় শহর পারগা পাইন-বন পাহাড়, ভেনেসিও নিদর্শন এবং চমৎকার জলপাইয়ের বাগান দিয়ে সজ্জিত ।

    প্রধান শহরে রয়েছে মনোমুগ্ধকর স্থাপত্য, বিচিত্র দোকান যেখানে পাওয়া যায় হাতে তৈরি সুভেনির ,আরামদায়ক ক্যাফে এবং সরাইখানা।

    দেখে নিন পারগার ঐতিহ্যবাহী পোশাক এবং এলাকার আকর্ষণীয় ইতিহাস সম্পর্কে জানার জন্য ধর্মীয় জাদুঘর ঘুরে আসুন।
    দিনে ঘুরে বেড়ানোর জন্য পারগাতে প্রচুর সুযোগ রয়েছে।

    এর ব্যস্ততম বন্দর থেকে একটি নৌকা ভাড়া করে আইওনিয়ান দ্বীপপুঞ্জে ঘুরে আসুন। সেখানে দেখতে পাবেন পুরাতন প্রাসাদ, দুর্দান্ত সব স্থাপত্য এবং অবিশ্বাস্য সমুদ্র সৈকত।

    আরও দক্ষিণে এগিয়ে গেলে দেখা মিলবে একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রত্নতাত্ত্বিক সাইট- আচেরন এর নেক্রম্যান্টিওন। পাথরের মন্দিরের এই ঐতিহাসিক সাইটটি আপনার ভ্রমণ তালিকার শীর্ষে থাকা উচিত।

    নদীপথে ভ্রমণের সময় আপনি মধ্যযুগীয় দুর্গ, পাহাড়ের চূড়া, গ্রাম এবং নির্জন সৈকতের দেখা পাবেন। ডাইভিং এর জন্য জায়গা খুঁজছেন? পারগার স্বর্গীয় উপকূলগুলো আপনার জন্য অপেক্ষা করছে। সাক্ষাৎ ঘটবে সমুদ্রতলের প্রাণী জগতের সাথে।

    বালুকাময় ক্রিওনারি সমুদ্র সৈকতে গেলে আপনি পাবেন সানবেড এবং ক্যাফে। সাঁতার কেটে যেতে পারবেন ছোট দ্বীপ পানাজিয়াতে।

    সিভটা:

    পারগা থেকে সিভটার দূরত্ব মাত্র ১৫ মাইল যেখানে রয়েছে ঐতিহ্যবাহী সরাইখানা, বিলাসবহুল ইওট এবং সারিবদ্ধ দৃষ্টিনন্দন মাছ ধরার নৌকা ।

    সহজেই বোঝা যায় কেন এই অঞ্চলকে গ্রিসের ক্যারিবিয়ান হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে। এখানে রয়েছে দেখার মতো প্রচুর বিস্ময়কর সৈকত।

    সোনালি বালি, ফিরোজা জল, সানবেড এবং ওয়াটারস্পোর্টস এর সমাহারে মেগা আম্মস এই এলাকার বিখ্যাত অংশ। নরম বালি এবং সাদা নুড়ির সমাহারে ছবি-সদৃশ বেলা ভ্রাকা বন্দর থেকে মাত্র ১৫ মিনিটের হাঁটা পথ এবং এখান থেকে আপনি জানতে পারবেন যে কীভাবে এলাকাটির উপনাম করা হয়েছে।

    তারপর কেনাকাটা, দর্শনীয় স্থান এবং বিশ্বমানের খাবারের স্বাদ নেয়ার জন্য সিভটা শহরে যান। একেবারে শীর্ষে অবস্থিত ঐতিহাসিক দুর্গে যাবার জন্য ঘূর্ণায়মান খাড়া গলিপথে আরোহণ করুন- সেখান থেকে আপনি আইওনিয়ান এবং ভ্যাল্টস সৈকতের অপূর্ব দৃশ্যাবলী দেখতে পাবেন।

    পথিমধ্যে বিচিত্র দোকান থেকে সুভেনির সংগ্রহ করতে পারেন, তবে হ্যা, রঙ্গিন ফুলে ফুলে ভরে ওঠা আঙ্গিনাসমূহের ছবি তোলার জন্য আপনার ক্যামেরাটি প্রস্তুত রাখবেন।

    এখান থেকে আপনি নৌকায় করে নির্জন উপসাগরে ভ্রমণের জন্য যেতে পারেন। উজিরিতে তাজা গ্রিল্ড সামুদ্রিক খাবার খেতে পারেন অথবা কেবল বিশ্রাম নিতে পারেন এবং মনোরম দৃশ্যাবলী দেখতে পারেন।

    সিভটা থেকে আপনি সি-ট্যাক্সি অথবা একটি ভাড়া নৌকায় ছোট্ট দ্বীপ প্যাক্সসে গিয়ে বিস্ময়কর নীল গুহা অথবা ওরথলিথসের চিত্তাকর্ষক শিলা গিয়ে দেখে আসতে পারেন । অথবা সিভটার পাহাড়ি প্রাকৃতিক দৃশ্য অবলোকনের জন্য একটি গাড়ি ভাড়া করতে পারেন।

    আইওননিনা শহরটি খুব একটা দূরে নয় যেখানে রয়েছে মনোরম লেক পামভটিদা । যেমন ভিকস-এ রয়েছে ববিেশ্বর গভীরতম খাদ- যার গভীরতা ৬০০০ ফুট। হেঁটে যেতে একদিন লাগে কিন্তু এর বিকল্প ব্যবস্থাও রয়েছে।

    প্রেভেজা,পারগা আর সিভটা ঘোরার পর সত্যি বাড়ি ফিরে আসতে মন চাইবে না। গ্রীসের উত্তর পশ্চিম উপকূলে অবস্থিত চমকপ্রদ এক উপকূলীয় শহর পারগা পাইন ফরেস্ট পর্বত, ভেনেসিও নিদর্শন এবং চমৎকার জলপাইয়ের বাগান দিয়ে সাজান ।

    প্রধান শহরে রয়েছে মনোমুগ্ধকর স্থাপত্য, বিচিত্র দোকান যেখানে পাওয়া যায় হস্তনির্মিত সুভেনির ,আরামদায়ক ক্যাফে এবং সরাইখানা।

    দেখে নিন পারগার ঐতিহ্যবাহী পোশাক এবং এলাকার আকর্ষণীয় ইতিহাস সম্পর্কে জানার জন্য ধর্মীয় জাদুঘর ঘুরে আসুন।

    দিনে ঘুরে বেড়ানোর জন্য পারগাতে প্রচুর সুযোগ রয়েছে। এর ব্যস্ততম বন্দর থেকে একটি নৌকা ভাড়া করে আইওনিয়ান দ্বীপপুঞ্জে ঘুরে আসুন। দেখতে পাবেন পুরাতন প্রাসাদ, দুর্দান্ত সব স্থাপত্য এবং অবিশ্বাস্য সমুদ্র সৈকত।

    আর দক্ষিণে এগিয়ে গেলে দেখা মিলবে গুরুত্বপূর্ণ প্রত্নতাত্ত্বিক সাইট- আচেরন এর নেক্রম্যান্টিওন এর। পাথরের মন্দিরের একটি ঐতিহাসিক সাইট যার দর্শন আপনার ভ্রমণ তালিকার শীর্ষে থাকা উচিত, এবং নদী পথে আপনি মধ্যযুগীয় দুর্গ, পাহাড়ের চূড়া, গ্রাম এবং নির্জন সৈকতের দেখা পাবেন।

    ডাইভিং এর জন্য জায়গা খুঁজছেন? পারগার প্যারাডিসিয়াকাল উপকূলগুলো আপনার জন্য অপেক্ষা করছে, সাক্ষাৎ ঘটবে সমুদ্র তলদেশবর্তী প্রাণী জগতের সাথে।

    বালুকাময় ক্রিওনারি সমুদ্র সৈকতে গেলে আপনি পাবেন সানবেড এবং ক্যাফে। সাঁতার কেটে যেতে পারবেন ছোট দ্বীপ পানাজিয়াতে।

    পারগা থেকে সিভটার দূরত্ব মাত্র ১৫ মাইল যেখানে রয়েছে ঐতিহ্যবাহী সরাইখানা, বিলাসবহুল ইওট এবং সারিবদ্ধ দৃষ্টিনন্দন মাছ ধরার নৌকা ।

    সহজেই বোঝা যায় কেন এই অঞ্চলকে গ্রিসের ক্যারিবিয়ান হিসেবে নামকরণ করা হয়েছে যেখানে প্রচুর বিস্ময়কর সৈকত রয়েছে।

    সোনালি বালি, নীলাভ জল, সানবেড এবং ওয়াটারস্পোর্টস এর সমাহারে মেগা আম্মস এই এলাকার বিখ্যাত ——??? । নরম বালি এবং সাদা নুড়ি, ছবি-সদৃশ বেলা ভ্রাকা বন্দর থেকে মাত্র ১৫ মিনিটের হাটা পথ এবং এখানে আপনি জানতে পারবেন কীভাবে এলাকাটির ডাকনাম করা হয়েছে।

    তারপর কেনাকাটা, দর্শনীয় স্থান এবং বিশ্বমানের খাবারের জন্য সিভটা শহরে যান। একেবারে শীর্ষে ঐতিহাসিক দুর্গে যাবার জন্য ঘূর্ণায়মান খাড়া গলিপথে আরোহণ করুন- সেখান থেকে আপনি আইওনিয়ান এবং ভ্যাল্টস সৈকতের অপূর্ব দৃশ্যাবলী দেখতে পাবেন।

    পথিমধ্যে বিচিত্র দোকান থেকে সুভেনির সংগ্রহ করতে পারেন, তবে হ্যা, রঙ্গিন ফুলে ভরে ওঠা আঙ্গিনাসমূহের ছবি তোলার জন্য আপনার ক্যামেরাটি প্রস্তুত রাখবেন।

    এখান থেকে আপনি নৌকায় চড়ে দূরবর্তী / নির্জন উপসাগরে ভ্রমণের জন্য যেতে পারেন, উজিরিতে তাজা গ্রিল্ড সামুদ্রিক খাবার খেতে পারেন অথবা কেবল বিশ্রাম নিতে পারেন এবং মনোরম দৃশ্যাবলী দেখতে পারেন।

    সিভটা থেকে আপনি সি-ট্যাক্সি অথবা একটি ভাড়া নৌকা করে ছোট্ট দ্বীপ প্যাক্সসে গিয়ে দেখে আসতে পারেন বিস্ময়কর নীল গুহা অথবা ওরথলিথসের চিত্তাকর্ষক শিলা ।

    অথবা সিভটার পাহাড়ি প্রাকৃতিক দৃশ্য অবলোকনের জন্য একটি গাড়ি ভাড়া করতে পারেন। আইওননিনা শহরটি খুব একটা দূরে নয় যেখানে রয়েছে মনোরম লেক পামভটিদা ।

    যেমন ভিকস-এ রয়েছে বিেশ্বর গভীরতম খাদ- যার গভীরতা ৬০০০ ফুট। হেঁটে যেতে একদিন লাগে কিন্তু এর বিকল্প ব্যবস্থাও রয়েছে

    প্রেভেজা, পারগার আর সিভটা ঘোরার পর সত্যি বাড়ি ফিরে আসতে মন চাইবে না।

    © এই নিউজ পোর্টালে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
    / month
    placeholder text

    সর্বশেষ

    রাজনীাত

    বিএনপি চেয়ারপারসনের জন্য বিদেশে হাসপাতাল খোজা হচ্ছে

    প্রভাতী সংবাদ ডেস্ক: বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিদেশে উন্নত চিকিৎসার জন্যে আবেদন করা হয়েছে। খালেদা জিয়ার পরিবারের সদস্যরা মনে করেন আবেদনে সরকারের দিক থেকে ইতিবাচক...

    আওয়ামী লীগের শান্তি সমাবেশ

    আরো পড়ুন

    Leave a reply

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    spot_imgspot_img