More

    লকডাউনে স্বেচ্ছাসেবক’দের হয়রানি: সামাজিক মাধ্যমে তীব্র সমালোচনা

    শিশির ওয়াহিদ :

    কোভিড-১৯ মহামারির উদ্ভূত পরিস্থিতির কারণে চলমান লকডাউনে একদিকে যেমন স্থবির হয়ে পড়েছে স্বাভাবিক জনজীবন, অন্যদিকে মৃত্যুর মিছিলে যোগ হচ্ছে একেকটি তাজা প্রাণ।

    এতসব বাঁধা উপেক্ষা করে মানুষের কল্যাণে ছুটে চলেছে একঝাঁক তরুণ-তরুণী। নিজেদের স্বেচ্ছা শ্রমে, কখনো-বা বিভিন্ন সংগঠনের ছায়াতলে দেশের প্রায় প্রতিটি অঞ্চলে তাঁরা নিয়োজিত আছে মানবসেবায়। সহজ ভাষায় আমরা তাঁদেরকে চিনি ‘স্বেচ্ছাসেবক’ নামে।

    সম্প্রতি চলমান লকডাউনের মধ্যে দেশের বেশ কিছু স্থানে প্রশাসন কর্তৃক স্বেচ্ছাসেবক হয়রানির খবর পাওয়া গেছে। স্বেচ্ছাসেবকরা যুক্তিসঙ্গত কারণ দেখালেও তাঁদেরকে জরিমানা সহ বিভিন্ন প্রকারের সাজা প্রদান করার ঘটনাও ঘটেছে। প্রশাসনের এই অদক্ষতা সূলভ আচরণে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বইছে তীব্র নিন্দা ও সমালোচনার ঝড়।

    গত বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে আরাফাত হোসাইন নামে এক স্বেচ্ছাসেবককে হয়রানি ও জরিমানার অভিযোগ উঠেছে। তাঁর বাড়ি বেগমগঞ্জ উপজেলার দূর্গাপুর গ্রামে৷

    ভুক্তভোগী আরাফাত হোসাইন এক ভিডিয়ো বার্তায় জানান, তিনি মোবাইলে জরুরী কল পেয়ে রক্ত নিয়ে হাসপাতালে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে দায়িত্বরত প্রশাসনের কর্মকর্তা তাঁকে আটকিয়ে ৫০০ টাকা জরিমানা করে। তাঁকে জানানো হয়, টাকা না দিতে পারলে বিনিময়ে ১০ দিনের জেল দেওয়া হবে। তাঁর সঙ্গে থাকা স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার নাম সম্বলিত টি-শার্ট, পরিচয় পত্র, রক্তের ব্যাগ দেখানোর পরেও তাঁকে ছাড় দেওয়া হয়নি।

    ভিডিয়োতে আরাফাত আরো জানান, প্রশাসনিক কর্মকর্তা তাঁকে বলেন ‘রোগী মারা যাক তবুও তুমি কেন বের হয়েছ!’

    এই ঘটনার একই দিনে রংপুরে সোহেল রানা নামক এক স্বেচ্ছাসেবককে হয়রানি ও জরিমানার অভিযোগ উঠেছে। ভুক্তভোগী সোহেল রানা রংপুর সদর উপজেলার আফসার আলীর ছেলে।

    ক্ষুব্ধ কণ্ঠে এক ভিডিয়ো বার্তায় সোহেল রানা জানান, তিনি একজন স্বেচ্ছাসেবক। স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার টি-শার্ট, পরিচয় পত্র, ড্রাইভিং লাইসেন্স ও গাড়ির প্রয়োজনীয় কাগজ থাকা সত্ত্বেও রক্তদান করতে যাওয়ার পথে প্রশাসনিক কর্মকর্তা তাঁকে ২৬৯ ধারায় (কাজ ছাড়া বের হওয়ায়) ২০০ টাকা জরিমানা করে।

    অন্যদিকে যশোরের চৌগাছাতে দুইজন স্বেচ্ছাসেবককে হয়রানির অভিযোগ পাওয়া গেছে। তাঁরা স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘পুড়াপাড়া ব্লাড ব্যাংকের’ সদস্য।

    গত বুধবার (৩০ জুন) দুপুরে মোটরসাইকেল যোগে পুড়াপাড়া ব্লাড ব্যাংকের সভাপতি সাগর আহমেদ ও সহ-অর্থ সম্পাদক সোহাগ হোসেন রক্ত পৌঁছে দিতে পুড়াপাড়া বাজার হতে চৌগাছার এক বেসরকারি হাসপাতালে যাচ্ছিলেন।

    পথিমধ্যে চৌগাছা মৃধাপাড়া মহিলা কলেজের সামনে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা তাঁদেরকে গতিরোধ করে। তাঁরা পুলিশ সদস্যদেরকে ঘটনার বিষয়বস্তু জানালেও সেটা তারা অগ্রাহ্য করে। শাস্তি স্বরূপ তাঁদেরকে মহিলা কলেজ থেকে চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পর্যন্ত প্রায় দেড় কিঃমিঃ পথ হেটে রক্ত পৌঁছে দিতে হয়।

    পুড়াপাড়া ব্লাড ব্যাংকের সভাপতি সাগর আহমেদ বলেন, মহামারি করোনা ভাইরাসের কারণে বর্তমান এই লকডাউনের মধ্যে আপনারা (প্রশাসন) যেমন দেশ বাঁচানোর লক্ষ্যে দেশের মানুষকে বাঁচানোর লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন, আমরাও একজন সচেতন নাগরিক হিশেবে অসহায় মানুষের কল্যাণে একজন রোগীর জীবন বাঁচানোর জন্য দিন রাত পরিশ্রম করে যাচ্ছি।

    তিনি আরো বলেন, ‘বর্তমান এই লকডাউনে আমাদের ডোনার ও স্বেচ্ছাসেবকদের যাতায়াত সমস্যা হচ্ছে, প্রশাসন বাধা দিচ্ছে। আমি প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলছি, আমরা একজন রোগীর জীবন বাঁচানোর জন্য কাজ করছি। তাই বর্তমান এই কঠিন সময়ে আমাদের একটু সুযোগ করে দিন।’

    সম্প্রতি প্রশাসনের এই অদক্ষতা সূলভ, অমানবিক আচরণ ও কার্যকলাপের কারণে তীব্র নিন্দা ও সমালোচনার ঝড় বইছে সোস্যাল মিডিয়ায়। স্বেচ্ছাসেবকরা সমাজের শত্রু নয়, তাঁরা মানুষ-সমাজ ও রাষ্ট্রের বন্ধু।

    এইধরনের অপ্রত্যাশিত ঘটনার পুনরাবৃত্তি যেন না ঘটে, সেই ব্যাপারে দেশের সচেতন নাগরিক সমাজ ও স্বেচ্ছাসেবকরা প্রশাসনের সহযোগিতা চেয়েছে।

    © এই নিউজ পোর্টালে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
    / month
    placeholder text

    সর্বশেষ

    রাজনীাত

    বিএনপি চেয়ারপারসনের জন্য বিদেশে হাসপাতাল খোজা হচ্ছে

    প্রভাতী সংবাদ ডেস্ক: বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিদেশে উন্নত চিকিৎসার জন্যে আবেদন করা হয়েছে। খালেদা জিয়ার পরিবারের সদস্যরা মনে করেন আবেদনে সরকারের দিক থেকে ইতিবাচক...

    আওয়ামী লীগের শান্তি সমাবেশ

    আরো পড়ুন

    Leave a reply

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    spot_imgspot_img