More

    স্যার না বলায় ব্যবসায়ীকে মারধর: পুলিশ-ইউএনও’র পাল্টাপাল্টি দোষারোপ

    মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি:

    এক ব্যবসায়ীকে মারধরের নির্দেশ দেওয়ার যে অভিযোগ উঠেছে সে ঘটনায় কোনো দোষ দেখছেন না জেলা প্রশাসক আব্দুল লতিফ। মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুনা লায়লা’র বিরুদ্ধে উঠা অভিযোগ আমলে নিতে রাজি না ডিসি।

    জেলা প্রশাসক আব্দুল লতিফ বলেন, ‘ইউএনওর সঙ্গে কথা হয়েছে, স্থানীয়দের সঙ্গেও হয়েছে। সবাই জানিয়েছেন, ওই ব্যবসায়ীকে মারধরের নির্দেশ ইউএনও দেননি’।

    রফিক নামে এক পুলিশ সদস্য ‘অতি উৎসাহী’ হয়ে এই কাজ করেছেন বলে দাবি জেলা প্রশাসক আব্দুল লতিফের।

    এ ঘটনায় ভিন্নমত পোষণ করেছেন সিঙ্গাইর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার রেজাউল হক।

    তিনি বলেন, ‘আমি সেখানে ছিলাম না। তবে আমার পুলিশ সদস্য রফিকের কথা রেকর্ড করেছি। সে বলেছে, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশেই মেরেছে।’

    যে ইউএনও রুনা লায়লা’র বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে জরুরী খাদ্য সামগ্রী নষ্টের অভিযোগও উঠেছিল।

    আইন কী বলে

    সর্বজনীন মানবাধিকারের ঘোষণা অনুযায়ী, ‘কাউকে নির্যাতনমূলক কোনো শাস্তি দেয়া যাবে না। বাংলাদেশ এই ঘোষণায় অনুস্বাক্ষর করেছে। একইসাথে কাউকে আঘাত করা বাংলাদেশের নিজস্ব আইনেও শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

    ঘটনাটি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ বলেন, ‘একজন ইউএনও’র সামনে পুলিশ এভাবে মারতে পারে না। ওই ব্যক্তির অপরাধ থাকলে তার বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেওয়ার সুযোগ আছে। কিন্তু মারধর করার কোনো সুযোগ বা আইন নেই।’

    তিনি আরও বলেন, ‘আপা বলার কারণেই যদি ইউএনওর ইঙ্গিতে মারা হয়, তাহলে বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া উচিত। আর পুলিশ সদস্য যদি নিজের ইচ্ছায় মেরে থাকলে পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া।’

    সেদিন যা ঘটেছে

    করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে শাটডাউনের মধ্যে সিঙ্গাইরের জাগীর বাজারে দোকান খুলেছিলেন স্বর্ণকার তপন চন্দ্র দাশ। শুক্রবার বিকেলে সেখানে অভিযান চালান ইউএনও রুনা লায়লা।

    এসময় অভিযান চলাকালে ইউএনওকে ‘আপা’ সম্বোধন করেন স্বর্ণকার তপন। তারপর ইউএনও’র নির্দেশে কনস্টেবল রফিক তাকে মারধর করে।

    মানিকগঞ্জের এই ঘটনাটি সামনে আসার পর সামাজিক মাধ্যমে ‍তুমুল সমালোচনা তৈরি হয়। জেলা প্রশাসক (ডিসি) আব্দুল লতিফ এ ঘটনার জন্য এক ‘অতি উৎসাহী কনস্টেবলকে’ দায়ী করেন।

    তিনি বলেন, ‘অতি উৎসাহী হয়ে পুলিশের এক কনস্টেবল লাঠি দিয়ে কয়েকটা বাড়ি দেয়। কেউ যদি অতি উৎসাহী হয়ে কাউকে বাড়ি দেয়, সেটা তো উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দোষ না। কারণ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তো তাকে মারতে বলে নাই।’

    এ সময় দোকানের মালিক ভুল স্বীকার করে মাফ চেয়ে জরিমানার টাকা পরিশোধ করেন। দ্রুত দোকান বন্ধ করে চলে যাওয়ার জন্য বলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। দোকান বন্ধ করলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাও তার অফিসে চলে আসেন।

    মানিকগঞ্জের জেলা প্রশাসক (ডিসি) আব্দুল লতিফ

    পুলিশ কর্মকর্তার দাবি নির্দেশদাতা ইউএনও

    সিঙ্গাইর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার রেজাউল হক বলেন, ‘আমি সেখানে ছিলাম না। তবে আমার পুলিশ সদস্য রফিকের কথা রেকর্ড করেছি। সে বলেছে, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশেই মেরেছে।’

    ইউএনও’র দায় অস্বীকার

    ইউএনও রুনা লায়লা বলেন, ‘সরকারের নির্দেশ উপেক্ষা করে দোকান খোলা ও লোকগমাগম করার অপরাধে তাকে ২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।’

    তিনি আরও বলেন, ‘আমি তো কাউকে মারতে বলিনি। আমি তখন দূরে। কিন্তু ঘটনা ঘটে গেছে।’

    মারধরের শিকার তপনের বক্তব্য

    তপন চন্দ্র দাশ বলেন, ‘পূর্বের কিছু মালের অর্ডার থাকায় সেগুলো ডেলিভারি দিতে দোকান খুলেছিলাম। এ সময় ভ্রাম্যমাণ আদালত এসে হাজির হয়। আমি জরিমানার টাকাও পরিশোধ করি। পুলিশ দেখে ভয় পেয়ে ইউএনওকে আপা বলে ক্ষমা চাই। এরপর কিছু বুঝে ওঠার আগেই আমাকে লাঠি দিয়ে তিন-চারটি বাড়ি মারে এক পুলিশ।’

    জরুরী খাদ্য সামগ্রী নষ্টের অভিযোগে শোকজ হয়েছিলেন ইউএনও রুনা লায়লা

    ৩৩৩- এর জরুরি ত্রাণসামগ্রী মানিকগঞ্জ জেলার সিংগাইরের ইউএনও রুনা লায়লার হেফাজতে পচে যাওয়ার ঘটনায় শোকজ করা হয়। ১২ জুন জেলা প্রশাসক এস এম ফেরদৌস তাকে শোকজ করেন।

    সেসময়ের জেলা প্রশাসক এস এম ফেরদৌস বলেছিলেন, ‘ইউএনওসহ সংশ্লিষ্টদের আগামী রবিবারের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়েছে। জবাবের আলোকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

    সেদিন ত্রাণ প্রত্যাশীসুরিয়া, জবেদা, রুপমা, রিতা, আমেনা ও রিতা রানীসহ অনেকেই অভিযোগ করেন, ত্রাণের জন্য ফোন দেয়ায় ইউএনও এসে আমাদের’কে পুলিশ দিয়ে ধরে নেয়ার হুমকি দেখান তিনি।

    ৩৩৩-এ কল দিয়ে ত্রাণ পাওয়া দুই নারী মমতা ও লাইলী বেগম জানিয়েছিলেন প্যাকেটে থাকা আলু-পেয়াজগুলো পচে গেছে। অন্যান্য খাদ্যপণ্যও দুর্গন্ধযুক্ত।

    সেসময় বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রচারিত সংবাদকে মিথ্যা অপপ্রচার ও সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্নের অপব্যাখ্যা দিয়ে ‘উপজেলা প্রশাসন সিংগাইর’ নামের ফেসবুক আইডি থেকে একটি স্ট্যাটাসও দেয়া হয়।

    © এই নিউজ পোর্টালে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
    / month
    placeholder text

    সর্বশেষ

    রাজনীাত

    বিএনপি চেয়ারপারসনের জন্য বিদেশে হাসপাতাল খোজা হচ্ছে

    প্রভাতী সংবাদ ডেস্ক: বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিদেশে উন্নত চিকিৎসার জন্যে আবেদন করা হয়েছে। খালেদা জিয়ার পরিবারের সদস্যরা মনে করেন আবেদনে সরকারের দিক থেকে ইতিবাচক...

    আওয়ামী লীগের শান্তি সমাবেশ

    আরো পড়ুন

    Leave a reply

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    spot_imgspot_img