শহীদ শেখ কামালের জন্মবার্ষিকীতে ঝিকরগাছা স্বেচ্ছাসেবক লীগের দোয়া মাহফিল

শাহ জামাল শিশিরঃ

১৯৭৫ সালের ১৫ই আগষ্ট আমরা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান শেখ কামালকে হারিয়েছি। তিনি ছিলেন ছাত্রলীগের তুখোড় নেতা, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব, আবাহনী ক্রীড়াচক্রের প্রতিষ্ঠাতা, নাট্য ব্যক্তিত্ব, ঢাকা থিয়েটারের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। ১৫আগষ্ট ভয়াল রাতে বঙ্গবন্ধুর পুত্র পরিচয় পাওয়ার পরেই বজলুল হুদা নামক এক নরপশু স্টানগান দিয়ে তাকে হত্যা করে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠপুত্র মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ শেখ কামালের ৭২তম জন্মবার্ষিকীতে ঝিকরগাছা উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক কমিটি দোয়া মাহফিলের আয়োজন করেছে।

বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৫টায় উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের ওয়াপদাহ রোডের টোকিও টাওয়ারের ২য় তলার নিজস্ব কার্যালয়ে দোয়া অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক আবুল কালাম আজাদ। এসময় শহীদ শেখ কামালের জীবনীর উপরে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক কমিটির যুগ্ম আহবায়ক আজহারুল ইসলাম লাবু, ক্রিকেটার সৈয়দ রাসেল, সদস্য, ওমর শরীফ সাকি, মাহমুদ মুকুল।

সভাপতির বক্তব্যে আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘শহীদ শেখ কামাল ছিলেন মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক। ১৯৪৯ সালের এই দিনে জাতির এই শ্রেষ্ঠ সন্তান টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন। জীবদ্দশায় তিনি একজন ক্রীড়াপ্রেমি ছিলেন, খেলাধুলায় ছিল তার আসক্তি। বাংলাদেশের ক্রীড়া সেক্টরকে তিনি অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন দেখতেন। মহান মুক্তিযুদ্ধের এই অন্যতম সংগঠককে বাংলাদেশের মানুষ শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করে’

যুগ্ম আহবায়ক আজহারুল ইসলাম লাবু তার বক্তব্যে বলেন, ‘বেঁচে থাকলে আজ শহীদ শেখ কামালের ৭২তম জন্মবার্ষিকী আনন্দের সাথে পালিত হত। কিন্তু ঘাতকের নির্মম বুলেট সেই আনন্দকে ম্লান করে দিয়েছে। ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগষ্ট বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারের হত্যার ঘটনায় প্রথম শহীদ তার জ্যেষ্ঠপুত্র শেখ কামাল। ‘

ক্রিকেটার সৈয়দ রাসেল তার বক্তব্যে বলেন,’দেশের ক্রীড়া জগতের উন্নয়নের জন্য শহীদ শেখ কামালের অবদান ছিল অনস্বীকার্য। একাধারে তিনি একজন ক্রীড়া সংগঠক, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, নাট্য ব্যক্তিত্ব। জন্মদিনে তার আত্মার মাগফিরাত কামনায় আমরা দুয়া করি।’

সদস্য ওমর শরীফ সাকি বলেন, ‘বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে আমাদের দেশের ইতিহাস জানতে হবে। যখনই ইতিহাস জানতে যাব তখনই শহীদ শেখ কামালের কথা চলে আসবে। তিনি শুধু বঙ্গবন্ধুর পুত্রই নন, একজন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক। তিনি ছিলেন মহান মুক্তিযুদ্ধের সম্মুখসারির যোদ্ধা।’

সদস্য মাহমুদ মুকুল বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগষ্ট আমরা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান শেখ কামালকে হারিয়েছি। তিনি ছিলেন ছাত্রলীগের তুখোড় নেতা, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব, আবাহনী ক্রীড়াচক্রের প্রতিষ্ঠাতা, নাট্য ব্যক্তিত্ব, ঢাকা থিয়েটারের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। ১৫আগষ্ট ভয়াল রাতে বঙ্গবন্ধুর পুত্র পরিচয় পাওয়ার পরেই বজলুল হুদা নামক এক নরপশু স্টানগান দিয়ে তাকে হত্যা করে।’

এসময় উপস্থিত ছিলেন কমিটির সদস্য, জাহিদুল ইসলাম, ফারুক হোসেন, মিজানুর রহমান, শাহাদৎ হোসেন, প্রিন্স আহমেদ, সাজ্জাদুল জামান রনি, শাহ জামাল শিশির, আল আমিন, মিন্টু মিয়া।

এছাড়াও উপস্থিত ছিল ঝিকরগাছা উপজেলা তাঁতীলীগের সভাপতি আলমগীর হোসেন, যুগ্ম সম্পাদক মন্টু গাজী, প্রশান্ত কুমার কাটু, মাহামুদুল হাসান সোহেল, সিপন সরদার, শাহিনুর রহমান শাহিন, সেলিম হোসেন, রাজন, শাহিন, আসাদুর জামান বাবু, পলাশ, প্রমূখ।

Leave a reply

Please enter your comment!
Please enter your name here