More

    সৎ মা’কে মৃত দেখিয়ে আত্মসাৎ: কোটি টাকার সম্পত্তি তবুও অনাহারে মা

    অনার্য বাঙ্গাল:

    মরিয়ম বিবি। যশোরের বেনাপোলের মৃত টেনাই মোড়লের স্ত্রী। মৃত স্বামী সুত্রে কোটি টাকার সম্পদ থাকলেও এ বিধবা নারীর এখন জীবন কাটছে অনাহারে।

    প্রভাতী সংবাদের অনুসন্ধানে জানা গেছে, ওয়ারিশ সনদের ফটোকপিতে জীবিত মরিয়ম বিবির নামের আগে মৃত লিখে করা হয়েছে জালিয়াতি। এ জালিয়াতি’র মাধ্যমে তাঁর কোটি টাকার সম্পদ নিজেদের নামে রেজিস্ট্রি করে নিয়েছে সতীনের সন্তানেরা।

    মরিয়ম বিবি বলেন, ‘নিজের সম্পদ ফিরে পেতে গত কয়েক বছর ধরে বারংবার ঘুরছেন আদালতের বারান্দায়। স্বামী মারা যাওয়ার পর সতীন-সন্তানেরা বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছে। আশ্রয় নিছি অন্যের বাড়িতে, সেখানে কাজ করে ভাত জুটে।’

    প্রতিবেশী আব্দুল জলিল বলেন, ‘টেনাই মোড়ল জীবিত থাকাবস্থায় দুই স্ত্রীর মৃত্যু হলে মরিয়ম বিবিকে বিয়ে করে। ২০০৮ সালে টেনাই মোড়লের মৃত্যু হয়। প্রথম স্ত্রীর গর্ভে চার ছেলেমেয়ে থাকলেও শেষের দুই স্ত্রীর ঘরে কোনো সন্তান ছিল না।’

    তিনি আরও বলেন, ‘টেনাই মোড়লের মৃত্যুর কয়েকদিন পরেই প্রথম স্ত্রীর চার ছেলে-মেয়ে মরিয়ম বিবিকে স্বামীর ভিটেবাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়। অসহায় অবস্থায় আমার বাড়িতে আশ্রয় দেয় তাকে।’

    এরপরে কিভাবে সম্পদ আত্মসাৎ করেছে সে সম্পর্কে আব্দুল জলিল বলেন, ‘২০১২ সালে বেনাপোল পৌরসভার একটি ওয়ারিশ সনদ নিয়ে মূল ওয়ারিশ সনদ ফটোকপি করে মরিয়ম বিবির নামের আগে মৃত লিখে তা আবার ফটোকপি করে। তারপর এই ওয়ারিশ সনদ নিয়েই মরিয়ম বিবির সকল সম্পদ তাদের নামে নামজারি করে নেয়’।

    বেনাপোল পৌরভার মেয়র আশরাফুল আলম লিটন ঘটনা সম্পর্কে অবহিত হয়ে মরিয়ম বিবিকে ‘জীবিত’ মর্মে একটি প্রত্যয়নপত্র দেন। মেয়রের প্রত্যয়নপত্র সহ যাবতীয় তথ্য-প্রমাণাদি নিয়ে আদালতে জমা দেন মরিয়ম বিবি।

    পরে সব দলিল-প্রমাণাদি দেখে ২০১৯ সালে আদালত মরিয়ম বিবির পক্ষে রায় দেন। আদালত মরিয়ম বিবিসহ টেনাই মোড়লের সব ওয়ারিশদের নামে জমি নামজারি করার জন্য নোটিস পাঠান।

    টেনাই মোড়লের তিন ছেলে আলী হোসেন, নুর হোসেন ও রবিউল কোনো নির্দেশ না পাওয়ার কথা বলে আদালতে আপিল করেন। কিন্তু দুই বছর পার হলেও আপিলের রায় হয়নি।

    বরং প্রতিমুহূর্তে সতীনপুত্রদের হুমকিতে জীবন কাটাতে হচ্ছে মরিয়ম বিবি’কে। শুধু মরিয়ম বিবি নন, আইনি কাজে সহায়তা করায় প্রতিবেশী আব্দুল জলিলকেও হুমকি দেওয়ার অভিযোগ করেছেন আব্দুল জলিল।

    বৃদ্ধা মরিয়ম বিবি বলেন, ‘আমার স্বামী টেনাই মোড়ল জীবিত থাকা অবস্থায় ভিটেবাড়ি থেকে আমার নামে দশ কাঠা জমি রেজিস্ট্রি করে দেন। তিনি মারা যাওয়ার পর স্বামীর প্রথম স্ত্রীর সন্তানেরা আমাকে নির্মম নির্যাতন করে ভিটে থেকে তাড়িয়ে দেয়।’

    ‘তারপর থেকে প্রতিবেশী আব্দুল জলিলের জমিতে কুড়েঘর বেঁধে বাস করছি। ওয়ারিশসূত্রে আমি সাড়ে ছয় বিঘার মতো জমি পাবো; যার বাজার মূল্য কোটি টাকার বেশি। সবকিছু থাকলেও আমি নিজের খাবার যোগাড় করতে পারছি না। জমি উদ্ধারে আদালতের খরচ বহন করাও অসম্ভব আমার পক্ষে।’

    বেনাপোল পৌরসভার কাগজপুকুর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আমিরুল ইসলাম বলেন, ‘টেনাই মোড়লের জমির পরিমাণ ১৬ একর। মৃত্যুর আগে তৃতীয় স্ত্রী মরিয়ম বিবির নামে ভিটে থেকে দশ কাঠা জমি রেজিস্ট্রি করে দিয়ে দেন।’

    ‘টেনাই মোড়লের মৃত্যুর পর তার ছেলেরা বেনাপোল ভূমি অফিসের তৎকালীন নায়েব আব্দুল মজিদকে মোটা টাকার ঘুষ দিয়ে পৌরসভার দেওয়া ওয়ারিশ সনদ জালিয়াতি করে জীবিত মরিয়ম বিবিকে মৃত দেখিয়ে জমি-সম্পত্তি নিজেদের নামে নামজারি করে নেয়।’

    মরিময় বিবি অপেক্ষা করছেন তার স্বামীর কাছে ফিরে যাওয়ার, বিধবা মরিয়ম বিবির অপেক্ষার অবসান কবে হবে? আদেও কি হবে? সেই দিনের অপেক্ষায় মরিয়ম বিবি!

    © এই নিউজ পোর্টালে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
    / month
    placeholder text

    সর্বশেষ

    রাজনীাত

    বিএনপি চেয়ারপারসনের জন্য বিদেশে হাসপাতাল খোজা হচ্ছে

    প্রভাতী সংবাদ ডেস্ক: বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিদেশে উন্নত চিকিৎসার জন্যে আবেদন করা হয়েছে। খালেদা জিয়ার পরিবারের সদস্যরা মনে করেন আবেদনে সরকারের দিক থেকে ইতিবাচক...

    আওয়ামী লীগের শান্তি সমাবেশ

    আরো পড়ুন

    Leave a reply

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    spot_imgspot_img