More

    আমের ব্যাপারী না আসায় বাগানেই পঁচে যাচ্ছে শত শত মন আম

    জেলা প্রতিনিধি, ঝিনাইদহঃ

    ঝিনাইদহে লকডাউনের জন্য আমচাষীরা ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখিন হচ্ছেন। বাগানে শত শত মন আম পঁচে গেলেও তারা বিক্রি করতে পারছেন না। চলমান লকডাউনে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আমের ব্যাপারী আসতে না পারায় এই সমস্যার সম্মুখিন হচ্ছেন তারা।

    সদর উপজেলার গান্না ইউনিয়নে গিয়ে দেখা গেছে, মাঠের পর মাঠ বিভিন্ন প্রজাতির আম বাগান। গাছে গাছে ঝুলে আছে কাঁচা-পাকা আম। লকডাউনের কারণে চাষিরা এই আম বাজারে বিক্রি করতে পারছেন না। অনেক চাষী এনজিও থেকে লোন নিয়ে আমচাষ করলেও তাদের সেই লোন শোধ দেয়ার ক্ষমতা নেই এখন।

    জানা গেছে, আগে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট থেকে আমের ব্যাপারীরা আসতো এই আম ক্রয় করতে। প্রতিদিন ছোটবড় ১০-১৫টি করে ট্রাক লোড হতো এখান থেকেই। কিন্তু এবার লকডাউনের কারণে দূর-দূরান্ত থেকে কোনো আমের ব্যাপারী বা কোনো আড়ৎ মালিক আসছেন না আম কিনতে। চারদিকে আম চাষিদের হাহাকার। গত বছর ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের কারণে ঋণের বোঝা মাথায় নিয়ে এবারও তারা আম চাষ করেছেন। কিন্তু এ বছরও বাগানেই পচে নষ্ট হচ্ছে আম।

    সদর উপজেলার গান্না ইউনিয়নের কাশিমনগর গ্রামের মো. রফিকুল ইসলাম সন্টু ব্যাংক ও বিভিন্ন এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে ১৩ বিঘা জমিতে আম্রপালি ও বারি-৪ জাতের আম চাষ করেছিলেন। ব্যাংকসহ বিভিন্ন এনজিওতে তার দেনা ৫ লাখ টাকা।

    কিন্তু তিনি এখন বাজারে ব্যাপারীদের কাছে ভালো দামে আম বিক্রি করতে পারছেন না। একদিকে আম বিক্রি করতে পারছেন না অন্যদিকে ভালো দাম না পাওয়ায় গাছেই পেকে নষ্ট হচ্ছে আম। এখন তিনি কীভাবে এই ঋণের বোঝা শোধ করবেন- এই ভেবেই তিনি আম বাগানেই বেহুঁশ হয়ে যান।

    আম চাষি মো. রফিকুল ইসলাম সন্টু জানান, তিনি গত বছরও ১৩ বিঘা জমিতে আম চাষ করেছিলেন। তখন ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের কারণে সব আম নষ্ট হয়ে যায়। এ বছরও তিনি একই জমিতে ব্যাংক ও এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে আম চাষ করেছেন। তার বাগানে আমের ফলন ভালো হয়েছে। প্রায় ৪৫ লাখ টাকার আম বিক্রি করা যেত তার বাগান থেকে।

    কিন্তু কঠোর লকডাউনের কারণে বাজারে আম বিক্রি কমে গেছে। সেই সঙ্গে দূর-দূরান্ত থেকে আম কিনতে যে ব্যাপারীরা আসতেন তারা এখন আসছেন না। ফলে গাছের সব আম পেকে বাগানেই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এখন তিনি ব্যাংক ও এনজিওর ঋণের টাকা পরিশোধ করবেন কীভাবে এই ভেবেই দিন কাটাচ্ছেন। আমের ব্যাপক ক্ষতি দেখে শনিবার (২৬ জুন) দুপুরে বাগানেই জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন তিনি।

    একই গ্রামের আম চাষি মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, বাগানের পাশে রাস্তার দাঁড়িয়ে থেকে কিছু আম বিক্রি করেছি। এখন আর ব্যাপারীরা আম কিনতে আসছেন না। এখন আমের ভরা মৌসুম চলছে। অথচ বাগানে কোনো ব্যাপারী আসছেন না। কিছু ব্যাপারী বাগান কিনে বায়না করে গেলেও তাদের অপেক্ষায় থেকে বাগানের আম গাছেই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

    আম চাষি রেজাউল করিম বলেন, আমাদের এখানে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, খুলনা, ফরিদপুর ও পিরোজপুর জেলার ব্যাপারীরা এ সময় আম আম কিনতে আসতেন। এখন তারা কেউ আসছেন না। আবার কিছু ব্যাপারী আসলেও তারা ৬০০ টাকা মণ দরে আম কিনতে চাচ্ছে। এই দামে আম বিক্রি করলে লোকসান হবে।

    আম চাষি সাজেজার রহমান জানান, তাদের এলাকায় এক হাজার বিঘা জমিতে আম চাষ হয়েছে। কাশিমপুর ছাড়াও লক্ষ্মীপুর, দহিঝুড়ি, আটলিয়া, চন্ডিপুর, শংকরপুর, জালালপুর ও মাধবপুরের আম চাষিরা করোনাকালে বেশি ক্ষতির মুখে পড়েছেন। দক্ষিণাঞ্চলের সবচেয়ে বড় আমের মোকাম হচ্ছে জেলার কোটচাঁদপুরে। সেখান থেকে ১০ দিন আগেও শত শত ট্রাক আম দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্রি হতো। এখন ৫০ ট্রাক আমও বিক্রি হচ্ছে না।

    কোটচাঁদপুরের আড়তদার মোমিনুর রহমান বলেন, বর্তমানে আমের বাজার খুবই ডাউন। করোনার কারণে আম বাজারজাত ও পরিবহন করা যাচ্ছে না। শনিবার পর্যন্ত সবচেয়ে ভালো আম বিক্রি হয়েছে ১২০০ টাকা মণ। আর বেশির ভাগ আম ৪০০ টাকা থেকে ৭০০ টাকা মণ বিক্রি হয়েছে। এই দামে আম বিক্রি করে চাষিদের লোকসান গুনতে হচ্ছে।

    ঝিনাইদহ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মো. আজগর আলী জানান, জেলায় ২ হাজার ২১১ হেক্টর জমিতে আম বাগান রয়েছে। এর মধ্যে সদরে ৫৮০, কালীগঞ্জে ৩৭০, কোটচাঁদপুরে ৭১০, মহেশপুরে ৫০০, শৈলকুপায় ২৫ ও হরিণাকুন্ডুতে ২৬ হেক্টর জমিতে বাগান রয়েছে। এ বছর ৩৩ হাজার ৫১১ মেট্রিক টন আম উৎপাদন হয়েছে।

    করোনার বিস্তার ও নানা বিধিনিষেধের কারণে চাষিরা আম বিক্রি করতে পারছেন না। বাইরের ব্যাপারীরা পরিবহন সংকটের কারণে আসতে পারছেন না। তাদের জন্য একটা কিছু করা দরকার বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

    ঝিনাইদহের জেলা প্রশাসক মো. মজিবর রহমান বলেন, আমাদের জেলায় কঠোর লকডাউন চললেও কৃষিপণ্য বিক্রির ওপর কোনো বিধিনিষেধ নেই। তারা সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত কাঁচাবাজার বা বিভিন্ন জায়গায় আম বিক্রি করতে পারবেন। এছাড়াও কৃষকরা যদি ঢাকা কিংবা দেশের বিভিন্ন জেলায় আম নিয়ে বিক্রি করতে চান তাহলে আমরা সেই ব্যবস্থাও করে দেব।

    © এই নিউজ পোর্টালে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
    / month
    placeholder text

    সর্বশেষ

    রাজনীাত

    বিএনপি চেয়ারপারসনের জন্য বিদেশে হাসপাতাল খোজা হচ্ছে

    প্রভাতী সংবাদ ডেস্ক: বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিদেশে উন্নত চিকিৎসার জন্যে আবেদন করা হয়েছে। খালেদা জিয়ার পরিবারের সদস্যরা মনে করেন আবেদনে সরকারের দিক থেকে ইতিবাচক...

    আওয়ামী লীগের শান্তি সমাবেশ

    আরো পড়ুন

    Leave a reply

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    spot_imgspot_img