More

    চৌগাছায় স্কুলছাত্র রাতুল হত্যার রহস্য উদঘাটন, ভগ্নিপতি গ্রেপ্তার

    গত রবিবার (১১ জুলাই) আনুমানিক দুপুর ২টা ৩০ মিনিটের দিকে নিজ বাড়ি থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর থেকে সে নিখোঁজ হয়। পরবর্তীতে ১২ জুলাই চৌগাছার লস্করপুরের শ্মশান মাঠের পাটক্ষেত থেকে রাতুলের লাশ উদ্ধার করে চৌগাছা থানা পুলিশ।

    যশোর ব্যুরো:

    যশোরের চৌগাছায় পাটক্ষেত থেকে উদ্ধার হওয়া নিহত স্কুলছাত্র রাতুল (১৮) হত্যায় জড়িত থাকায় একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এসময় হত্যায় ব্যবহৃত সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়েছে।

    এ হত্যাকাণ্ডে সরাসরি জড়িত থাকায় নিহত রাতুলের আপন ভগ্নিপতি (দুলাভাই) শিশির আহম্মেদকে (২১) চট্রগ্রাম থেকে আটক করেছে পুলিশের একটি চৌকস দল। ধৃত শিশির আহম্মেদ ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর থানার কাশিপুর গ্রামের হায়দার আলী মন্ডলের ছেলে।

    শনিবার (১৭ জুলাই) এক প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের এ তথ্য নিশ্চিত করেছে যশোর জেলা পুলিশ।

    পুলিশ সূত্রে জানা যায়, শ্বশুরের প্রতি ব্যক্তিগত ক্ষোভ থেকে এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে আসামি শিশির।

    আসামি শিশিরের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী, নিজ শ্বশুর একদিন বাড়িতে ডেকে এনে তাকে অপমান অপদস্থ করে। যার কারণে রাগে ক্ষোভে সেই থেকে তার একমাত্র ছেলে (রাতুল)-কে হত্যার ফেলার পরিকল্পনা করতে থাকে।

    পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী রাতুলকে তার ভগ্নিপতি শিশির আহাম্মেদ মোবাইল ফোনে
    (রাতুলের বোনের ফোন দ্বারা) ডেকে নিয়ে চৌগাছার লস্করপুরে নিয়ে যায়। সেখানে গিয়ে রাতুলকে গাঁজা সেবন ও কোমল পানীয়র সাথে ঘুমের ঔষধ মিশিয়ে খাইয়ে অজ্ঞান করে। অজ্ঞান করার পর আসামি শিশির রাতুলের নাক মুখে স্কচটেপ মুড়িয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে।

    রাতুলের মৃত্যু নিশ্চিত করে ঘটনাস্থলে পাটক্ষেতে লাশ গুম করার জন্য ফেলে রাখে ও গায়ের কাঁপড় খুলে ঘটনাস্থলের পাশে আরেকটি পাট ক্ষেতে ফেলে রাখে। পরবর্তীতে রাতুলের ব্যবহৃত মোবাইল থেকে সিমকার্ড খুলে আসামি শিশির তার নিজ বাসভবনের ইটের নিচে পুতে রাখে।

    ব্রিফিংয়ে পুলিশ আরো জানান, ঘটনার পরপরই আসামি শিশির গা ঢাকা দেয়। শুক্রবার (১৬ জুলাই) পুলিশের একটি চৌকস দল চট্রগ্রামের সিএমপি বন্দর থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তদন্তে প্রাপ্ত আসামি ও মূল হত্যাকারী শিশির আহম্মেদকে গ্রেফতার করে। আসামির দেওয়া তথ্য অনুযায়ী একইদিন রাত ৯:৩০ মিনিটে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত সরঞ্জামাদি, আসামির মোবাইল, নিহত রাতুলের ব্যবহৃত মোবাইল, ও পরিহিত বস্ত্র উদ্ধার করা হয়।

    প্রসঙ্গত, গত সোমবার (১২ জুলাই) বিকালে যশোরের চৌগাছার লস্করপুর শ্মশান মাঠের পাটক্ষেত থেকে মুখে স্কচটেপ বাঁধা এক যুবকের লাশ উদ্ধার করে চৌগাছা থানা পুলিশ।

    পরবর্তীতে মৃত যুবকের আত্মীয়-স্বজন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সংবাদ পেয়ে ও ছবি দেখে মৃতদেহ শনাক্ত করে পূর্বক জানায় যে, উদ্ধারকৃত লাশের নাম এহতেশাম মাহমুদ রাতুল (১৮)। সে ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার বাজিপোতা গ্রামের মোঃ মহিউদ্দীনের ছেলে। সে উপজেলার সামবাজার এম.পি.বি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণীর ছাত্র (চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষার্থী )।

    গত রবিবার (১১ জুলাই) আনুমানিক দুপুর ২টা ৩০ মিনিটের দিকে নিজ বাড়ি থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর থেকে সে নিখোঁজ হয়। পরবর্তীতে ১২ জুলাই চৌগাছার লস্করপুরের শ্মশান মাঠের পাটক্ষেত থেকে রাতুলের লাশ উদ্ধার করে চৌগাছা থানা পুলিশ।

    এ ঘটনায় পরেরদিন (১৩ জুলাই) রাতুলের পিতা মহিউদ্দীন বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে চৌগাছা থানায় মামলা করেন। মামলা নং-০৮।

    মামলাটি চাঞ্চল্যকর ও ক্লুলেস (সূত্র বিহীন) হওয়ায় যশোর জেলা পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদা বিপিএম (বার), পিপিএম মামলার তদন্তভার যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখার উপর ন্যাস্ত করেন। অফিসার ইনচার্জ জেলা গোয়েন্দা শাখা এর হাওলা মতে এসআই(নিঃ) মোঃ শামীম হোসেন বর্ণিত মামলার তদন্তভার গ্রহণ করেন।

    জেলা গোয়েন্দা শাখার অফিসার ইনচার্জ রূপন কুমার সরকারের নেতৃত্বে তদন্তকারী কর্মকর্তা গোয়েন্দা শাখার এস.আই মোঃ শামীম হোসেন, সঙ্গীয় এস.আই মোঃ মফিজুল ইসলাম, ও এ.এস.আই রঞ্জন সরকার, সঙ্গীয় ফোর্স সহ একটি চৌকস টিম গোপন সূত্রের ভিত্তিতে ১৬ জুলাই আনুমানিক ১টা ৩০ মিনিটে চট্টগ্রামের সিএমপি বন্দর থানা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে তদন্তে প্রাপ্ত আসামী ও মূল হত্যাকারী ভিকটিমের ভগ্নিপতি (দুলাভাই) শিশির আহম্মেদকে গ্রেফতার করে।

    © এই নিউজ পোর্টালে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
    / month
    placeholder text

    সর্বশেষ

    রাজনীাত

    বিএনপি চেয়ারপারসনের জন্য বিদেশে হাসপাতাল খোজা হচ্ছে

    প্রভাতী সংবাদ ডেস্ক: বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিদেশে উন্নত চিকিৎসার জন্যে আবেদন করা হয়েছে। খালেদা জিয়ার পরিবারের সদস্যরা মনে করেন আবেদনে সরকারের দিক থেকে ইতিবাচক...

    আওয়ামী লীগের শান্তি সমাবেশ

    আরো পড়ুন

    Leave a reply

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    spot_imgspot_img